গলায় জুতার মালা দিয়ে এতিম কি'শোরকে নি'র্যাতন!

চু’রির অ’পবাদে বিদ্যুতের খুঁটির সঙ্গে বেঁধে ১৬ বছরের এক এতিম কি'শোরকে মা’রধরের অ’ভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে লক্ষ্মীপুর পৌর শহরের ২ নং ওয়ার্ড এলাকায়। এ ঘটনায় সোমবার (২০ জানুয়ারি) নি’র্যাতনের শিকার ওই কি'শোরের নানি বাদী হয়ে সদর থা'নায় অ’ভিযোগ করলেও পু’লিশ এখনো পর্যন্ত কাউকে গ্রে’প্তার করতে পারেনি।

জানা যায়, মা’রধরের পর গলায় ঝাড়ু ও জুতার মালা পরিয়ে নি’র্যাতন করা হয়। দোকান কর্মচারী ওই কি'শোর বর্তমানে লক্ষ্মীপুর সদর হাস*পাতা'লে চিকিৎসাধীন। এদিকে, নি’র্যাতনের পর ঝাড়ু ও জুতার মালা গলায় পরিয়ে ওই কি'শোরকে এলাকায় ঘোরানোর ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রকাশের পর ভাই'রাল হয়ে যায়। এতে ওই কি'শোরের সামাজিক ম’র্যাদা ক্ষুণ্নসহ মানবাধিকার লঙ্ঘিত হয়েছে বলে মনে করছেন সচেতন মহল। এ বিষয়ে স্থানীয়রা জানান, গত ছয় মাস ধরে রাশেদের চামড়ার দোকানে কাজ করছিলেন ওই কি'শোর। তবে দোকান মালিক রাশেদ তাকে কোন বেতন দেন না বলে কি'শোরটির দাবি। বেশ কয়েকবার বেতন চাওয়ার পরও তা না দেওয়ায় কি'শোরটি মালিকের অগোচরে দোকান থেকে টাকা নিয়ে নেন।

চু’রির অ’ভিযোগ এনে এমন ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে শনিবার বিকেলে দোকান মালিক কি'শোরটিকে মা’রধরের পর গলায় ঝাড়ু ও জুতার মালা পড়িয়ে ঘুরিয়ে নি’র্যাতন করে পু’লিশে সোপর্দ করেন। কিন্তু পরে তাকে পু’লিশের কাছ থেকে ছাড়িয়ে এনে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও মাতব্বরেরা সালিস বৈঠক ৩০ হাজার টাকা জ'রিমানা করেন। ওই কি'শোরের নানি জানান, আমা’র নাতিকে মা’রধর ও অ’পমানের ভিডিও এবং ছবি ফেইসবুকে ছেড়ে দেওয়া হয়। তাকে পু’লিশে দেওয়ার পর ছাড়িয়ে এনে মোটা অঙ্কের টাকা জ'রিমানা করেন স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও মাতব্বররা। জ'রিমানার টাকা দিতে না পারায় আমা’র নাতিকে আবারও নি’র্যাতন করা হয়।

পরে রবিবার রাত ৯ টার দিকে স্থানীয়দের সহযোগিতায় তাকে লক্ষ্মীপুর সদর হাস*পাতা'লে ভর্তি করা হয়। ঘটনার সত্যতা জানতে চাইলে ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. শিপন ও সালিসদার ইসমাইল বলেন, ঝাড়ু ও জুতার মালা পরিয়ে ঘোরানোর ঘটনা স’ম্পর্কে আম’রা কিছু জানি না। আম’রা বিচার শেষ হওয়ার আগেই ঘটনাস্থল থেকে চলে আসি। তবে সদর থা'নার ওসি (ত’দন্ত) মোসলেহ উদ্দিন জানান, কি'শোরকে নি’র্যাতনের অ’ভিযোগ পেয়েছি। ঘটনার ত’দন্ত চলছে।